ঈদ শেষে নগরে ফিরতি যাত্রা এখনও ভালো করে শুরু হয়নি। ঈদের তিনদিনের ছুটির সঙ্গে বাড়তি দুটো দিন যোগ হওয়ায় অনেকেই বাড়ি গিয়ে এবার স্বস্তির নিশ্বাস ফেলার সুযোগ পেয়েছেন। এজন্য পরিবারের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করে ঢিমেতালে ঢাকায় ফিরছে নগরবাসী।

রাজধানীর সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে মানুষের তেমন ভিড় লক্ষ্য করা যায়নি। শুক্রবার (০৭ জুন) ভোর ৪টা থেকে সকাল ৯টা পর্যন্ত মাত্র ৪০টি লঞ্চ ২০ হাজারের মতো যাত্রী নিয়ে টার্মিনালে ভিড়েছে। যা বছরের অন্যান্য সময়ের থেকেও কম।

নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ বলছে, এখনও ঈদের ফিরতি যাত্রা শুরু হয়নি। এখন যারা আসছে, তারা অতিরিক্ত ভিড় থেকে রক্ষা পেতে আগেই চলে আসছে। তবে শনিবার (০৮ জুন) থেকে ঈদের ফিরতি যাত্রা শুরু হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

শুক্রবার সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে গিয়ে দেখা যায়, টার্মিনালে যাত্রীদের তেমন কোনো চাপ নেই। লঞ্চ আসলেও সেগুলো ছিল ফাঁকা। যে লঞ্চগুলো পাঁচ হাজার যাত্রী নিয়ে আসে। সেখানে গড়ে মাত্র ২০০ যাত্রী নিয়ে ঢাকায় আসছে। সাধারণত অন্যান্য ঈদের পরদিন থেকেই সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে রাজধানীমুখী যাত্রীদের ভিড় বাড়তে থাকে। এবার তার ব্যতিক্রম দেখা গেছে। ঈদের ছুটি বেশি হওয়ায় এমনটা হয়েছে। রাজধানীমুখী মানুষ আস্তে আস্তে ঢাকায় ফিরছেন। এ দিন ভোর ৪টা থেকে সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত টার্মিনালে ভিড়েছে ৪০টি লঞ্চ। আর ঘাট থেকে ঢাকা ছেড়ে গেছে ১৭টি লঞ্চ।

পরিবারের সঙ্গে ঈদ করে বরিশাল থেকে ঢাকায় ফিরেছেন রুবিনা ইসলাম। তিনি বলেন, লঞ্চ একেবারে ফাঁকা। আমি ভাবতেই পারিনি, ঈদের পর এতো ফাঁকা লঞ্চ পাবো। আজ ঢাকায় এসেছি শুধু লঞ্চে ভিড় কম হবে বলে। তা না হলে আরও দুইদিন পর আসার ইচ্ছে ছিল। এছাড়া এখনও দুইদিনের ছুটি রয়ে গেছে।তিনি বলেন, এবার বাড়ি যাওয়ার সময়ও ভালোভাবে গিয়েছি। আসলামও ভালোভাবে। কোনো ধরনের সমস্যা হয়নি। কোথাও কোনো অতিরিক্ত ভাড়া আদায় হয়েছে এমন খবর শুনিনি। এছাড়া যাত্রীদের নিরাপত্তার জন্য টার্মিনাল ও নৌযানে পুলিশ, র‌্যাব ও আনসার বাহিনীর সদস্যদের কঠোর নজরদারি ছিল।

নৌযান সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রোববার (০৯ জুন) থেকে সরকারি অফিস পুরোদমে শুরু হওয়ার কারণে এবার রাজধানীমুখী যাত্রীরা কিছুটা দেরিতে ফিরছেন। ফলে ঈদের পর প্রথম দুইদিন তেমন ভিড় লক্ষ্য করা যায়নি।

সদরঘাট নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের পরিদর্শক (বিআইডব্লিউটিএ) এসএম শফিকুল ইসলাম বলেন, নগরে ঈদের ফিরতি যাত্রা এখনও শুরু হয়নি। শনিবার থেকে ভিড় একটু বাড়বে। তবে সবচেয়ে বেশি ভিড় হবে রোববার ও সোমবার। শুক্রবার সকাল ৯টা পর্যন্ত মাত্র ৪০টি লঞ্চ টার্মিনালে ভিড়ছে। এর কোনোটিতে যাত্রী ছিলেন ১৫০ জন। আবার কোনোটিতে ২০০ জন। সে হিসেবে গড়ে ২০ হাজার যাত্রী এসেছেন কিন্তু বছরের অন্যান্য সময় দৈনিক ৭০ থেকে ৮০ হাজার লোক যাতায়াত করে থাকেন।

তিনি বলেন, এবারের ঈদযাত্রা স্বস্তির হয়েছে। নৌপথে কোথাও কোনো দুর্ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। একইসঙ্গে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের খবরও আমরা পাইনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here