ধান, নদী, খাল—এই তিনে বরিশাল। বরিশালে অসংখ্য খাল আছে, আছে ছোট-বড় অনেক নদী। মাটির গুণাগুণেও সমৃদ্ধ। ফলে ভৌগলিক কারণে বরিশাল বিভাগে রেলপথ নির্মাণ করা যায়নি। সকল বাধা কাটিয়ে খুলনা বিভাগের সঙ্গে বরিশাল বিভাগকে রেলপথে যুক্ত করার উদ্যোগ নিয়েছে রেলপথ মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, গোপালগঞ্জের গোবরা-পিরোজপুর এবং বাগেরহাটের সঙ্গে ব্রডগেজ রেলসংযোগের লক্ষ্যে ফিজিবিলিটি স্টাডির মাধ্যমে সম্ভাব্য রুট নির্ধারণ করা হবে। রেলপথের অ্যালাইনমেন্ট নির্ধারণ, নকশা, সার্ভে, ব্রডগেজ রেললাইন, ব্রিজ, স্টেশন, সিগন্যালিং এবং অপারেশন সুবিধাসমূহ চিহ্নিত করা হবে। চলতি সময় থেকে ২০২১ সালের জুন মেয়াদে প্রায় ১২ কোটি টাকা ব্যয় করেই সকল সমীক্ষা করা হবে।

বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের গোপালগঞ্জের গোবরা থেকে পিরোজপুর হয়ে বাগেরহাট ও পিরোজপুর দু’টি জেলাকে রেলপথে যুক্ত করার মাধ্যমে খুলনা বিভাগের সঙ্গে বরিশাল বিভাগের যাতায়াত সুবিধা বাড়বে। কয়েকটি রুটও নির্ধারণ করা হয়েছে। গোবরা রেলস্টেশন থেকে নাজিরপুর (পিরোজপুর) হয়ে পিরোজপুর পর্যন্ত ৪২ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণ করা হবে। তবে মধুমতি নদীর উপর পাটগাতি সেতুর মতো একটি রেলসেতু নির্মাণ করা হবে প্রকল্পের আওতায়।

‘বাংলাদেশ রেলওয়ের গোবরা (গোপালগঞ্জ) হতে পিরোজপুর পর্যন্ত ব্রডগেজ রেল লাইন নির্মাণ এবং বাগেরহাটে রেলসংযোগ স্থাপন’ প্রকল্পের আওতায় এমন উদ্যোগ। মূল প্রকল্প গ্রহণের আগে সম্ভাব্যতা যাচাই ও বিশদ পরিকল্পনা নেওয়া হবে।

প্রকল্পটি বাস্তাবয়িত হলে গোপালগঞ্জ-টুঙ্গিপাড়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধি এবং বাগেরহাট ষাটগম্বুজ মসজিদে যাতায়াতকারী পর্যটকদের জন্য সুবিধা বাড়বে। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের করিডর হিসেবে পিরোজপুর ও বাগেরহাট জেলার গুরুত্বও অনেক। এই দুটি করিডরকে রেল নেটওয়ার্কের আওতায় আনতেই প্রকল্পটি হাতে নেওয়া হচ্ছে। এই লাইনটি নির্মিত হলে ভবিষ্যতে ভাঙ্গা হয়ে বরিশাল-পায়রা সমুদ্র বন্দর পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণের সঙ্গেও প্রকল্পটি সংযোগ হতে পারবে।

অন্যদিকে ফকিরহাট (বাগেরহাট)-বাগেরহাট-পিরোজপুর রেলপথ নির্মাণের ফলে আরও ২০ কিলোমিটার রুট বাড়াতে হবে। ফলে প্রকল্পের আওতায় মোট রেলপথের পরিমাণ দাঁড়াবে ৬২ কিলোমিটার। ২০ কিলোমিটার পথ বৃদ্ধি করতে হলে বাগেরহাট শহরের নিকট ভৈরব নদীর উপরে দড়াটানা সেতু ও পিরোজপুর শহরের নিকট বলেশ্বর রেলসেতু নির্মাণ করা হবে।

রেলপথ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-প্রধান আ ন ম আজিজুল হক বলেন, সারা বাংলাদেশকে রেল নেটওয়ার্কের আওতায় আনা হবে। সেই লক্ষ্যেই গোপালগঞ্জ-পিরোজপুর-বাগেরহাট রুটে নতুন রেলপথ নির্মাণ করবো। এটা আমাদের পূর্ব পরিকল্পনা। প্রাথমিক কাজ হিসেবে ফিজিবিলিটি স্টাডি করছি। এরপরেই এই রুট নির্মাণে বড় প্রকল্প হাতে নেওয়া হবে। সকল চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে বরিশাল বিভাগের সকল জেলা একে একে রেল নেটওয়ার্কের আওতায় আসবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here