নানা সংকটের মধ্য দিয়ে চলছে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফিজিক্যাল মেডিসিন ও রিহেবিলিটেশন বিভাগ। আধুনিক পদ্ধতিতে ব্যথা নিরাময়ের জন্য বিভাগটি চালু হলেও এখন চলছে মাত্র একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দিয়ে। এজন্য বারবার আবেদন করা হলেও মিলছে না আধুনিক যন্ত্রপাতি। নতুন চিকিৎসা পদ্ধতি পিআরপি চালু হলেও প্রয়োজনীয় যন্ত্রের অভাবে প্রয়োগ করা যাচ্ছে না।

অপারেশন ছাড়াই প্লাটিলেট রিচ প্লাজমা- পিআরপি’র মাধ্যমে জয়েন্ট, লিগামেন্ট, মাংশপেশী আংশিক ছিড়ে গেলে চিকিৎসা দেয়া যায়। এ জন্য রোগীর রক্তকে প্রক্রিয়াজাত করে প্রয়োগ করতে হয়। এর মধ্যদিয়ে ইনজুরি বা ক্ষয় হওয়া স্থানটি আবার নতুনভাবে তৈরি হয়ে রোগী দ্রুত কর্মক্ষম জীবনে ফিরতে পারে। শুধু যন্ত্রাংশ না থাকায় এ চিকিৎসা দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। নেই বিভিন্ন ধরনের ব্যথা নিরময়ের যন্ত্রও। তাছাড়া রোগীদের ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়ার নিয়ম থাকলেও নেই ইনডোর ব্যবস্থা।

মেডিকেল অফিসার থেকে শুরু করে ইন্টার্ন চিকিৎসক, টেকনোলজিস্ট ও কর্মচারী নিয়োগের দাবি জানালেন সেবিকারা।

মেডিকেলের এক্সটেশন ভবনের কাজ শেষ হলে সেখানে বড় পরিসরে এ বিভাগের কর্মকান্ড পরিচালনা করা হবে। দেয়া হবে ইন্টার্ন চিকিৎসকও। জানালেন পরিচালক।

১৬ বছর আগে হাসপাতালের ২য় তলায় বিভাগটি খোলা হলেও জনবল সংকটে চিকিৎসা হয়নি। ২০১৬ সালে একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক, একজন ফিজিওথেরাপিষ্ট এবং কয়েকজন সেবিকা নিয়ে শুরু হয় এ বিভাগের কার্যক্রম

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here