প্রেমের টানে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে মুসলিম যুবককে বিয়ে করায় এক নবদম্পতিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার নন্দলালপুর ইউনিয়নের সোন্দাহ বাগানপাড়ার একটি বাড়ি থেকে তাদের গ্রেফতার করে পুলিশ।

গ্রেফতার নবদম্পতি হলেন সাতক্ষীরার আশাশুনি থানার বিশ্বজিৎ ও লক্ষ্মী রানির মেয়ে লাবণী (২০) এবং একই এলাকার মফিজুল ইসলামের ছেলে গোলাম আযম (২৫)। প্রেমের টানে সাতক্ষীরা থেকে পালিয়ে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বিয়ে করেন তারা। এরপর কুমারখালীতে আত্মীয়ের বাড়িতে চলে যান।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, দীর্ঘদিন ধরে লাবণী ও গোলাম আযমের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিল। এরই মধ্যে উভয়ে বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন। দুই পরিবারের কথা চিন্তা করে প্রাপ্তবয়স্ক প্রেমিক-প্রেমিকা বাড়ি থেকে পালিয়ে ঢাকায় চলে যান।

গত ২ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে লাবণী বিশ্বাস মুসলিম ধর্ম গ্রহণ করে আঁখি আক্তার নাম রাখেন। ৩ ফেব্রুয়ারি একই কোর্টে নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে কোর্ট ম্যারেজ করেন তারা।

বিয়ের পর ঢাকায় থাকার ব্যবস্থা করতে না পেরে স্ত্রীকে নিয়ে কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে আত্মীয়ের বাড়ি চলে আসেন আযম। উপজেলার নন্দলালপুর ইউনিয়নের সোন্দাহ বাগানপাড়া এলাকায় আত্মীয়ের বাড়িতে আশ্রয় নেন নবদম্পতি। ১২ ফেব্রুয়ারি বিষয়টি জানাজানি হলে নবদম্পতিকে পুলিশে সোপর্দ করেন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান নওশের আলী।

কুমারখালী থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর আলম বলেন, সাতক্ষীরার আশাশুনি থানায় মেয়ের বাবা মামলা করেছেন। এজন্য তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। আমাদের কিছুই করার নেই। তারা আমাদের হেফাজতে থাকবেন। আশাশুনি থানা পুলিশ এসে তাদের নিয়ে যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here