পটুয়াখালীর উপকূলে ঘূর্র্ণিঝড়ে একজন নিহত এবং ১১ জন আহত হয়েছেন। এতে নষ্ট হয়েছে ছয় হাজার ১৮ একর জমির ফসল। শনিবার দুপুর ১টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে জেলা প্রশাসক মতিউল ইসলাম চৌধুরী এ তথ্য জানান।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ‘ঘূর্র্ণিঝড় ফনীর প্রভাবে জেলায় একজন নিহত ও ১১ জন আহত হন। মরিচ, মুগডাল ও সামান্য ধানসহ ছয় হাজার ১৮ একর জমির ফসলের ক্ষতি হয়েছে। ঘর-বাড়ির আংশিক ক্ষতি হয়েছে দুই হাজার ৯২টি। গবাদি পশু নিখোঁজ রয়েছে ১৭৫টি। পূর্বের ক্ষতিগ্রস্ত বেরিবাঁধ ১০ কিলোমিটার আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত রয়েছে ১৫ কিলোমিটার। গাছপালার ক্ষতি হয়েছে তিন হাজার ১২৫টি। মাছের ঘের ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৫০টি।

পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় গাছ পরে নিহত ব্যক্তির নাম হাবিব। তিনি আহত অবস্থায় বরিশাল শেবচিমে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।
এ দিকে সকাল থেকেই পটুয়াখালীর আবহাওয়ার পরিস্থিতি উন্নতি হচ্ছে। বর্তমানে রৌদ্রজ্জ্বল আবহাওয়া বিরাজ করছে। আশ্রয় কেন্দ্র আসা ঝুঁকিতে থাকা মানুষ তাদের ঘরবাড়িতে ফিরতে শুরু করেছেন। দুর্গতদের ত্রাণ সহায়তা অব্যাহত রেখেছে জেলা প্রশাসন। এদিকে ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদেরও ত্রাণ সহায়তার আওতায় আনা হচ্ছে বলে জানিয়েছে প্রশাসন।

প্রবল জোয়ারে বেড়িবাঁধের ভাঙা অংশ দিয়ে পানি ঢুকে কিছু কিছু নিচু এলাকা আংশিক প্লাবিত হয়েছে।
পটুয়াখালী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী হাসানুজ্জামান জানান, বরাদ্দ পাওয়া সাপেক্ষে এসব বেড়িবাঁধ মেরামতের উদ্যোগ নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here