অনলাইন ডেস্ক : বরগুনা শহরে চাঞ্চল্যকর রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় এখনো পর্যন্ত চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার সকালে মামলার ৪ নম্বর আসামি শুভংকর শুভ চন্দনকে গ্রেপ্তার করা হয়। দুপুরে ৯ নম্বর আসামি মো. হাসান ওরফে মেহেদী হাসান, বিকেলে নাজমুল ও মহারাজকে গ্রেপ্তার হয়। এর মধ্যে নাজমুল ও মহারাজ মামলার তালিকাভুক্ত আসামি নন। তাদের অজ্ঞাতপরিচয় হিসেবে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের স্বার্থে গ্রেপ্তারকৃত আসামিদের বিষয়ে গণমাধ্যমে বিস্তারিত তথ্য দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে পুলিশ।

বরগুনার পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন বলেন, রিফাতের বাবার দায়ের করা মামলায় এখনো পর্যন্ত চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর মধ্যে দুইজন তালিকাভুক্ত ও বাকি দুইজন অজ্ঞাতনামা আসামি।

তিনি বলেন, খুব শিগগিরই মামলার মূল আসামি নয়ন ও রিফাত ফরায়েজীসহ বাকিদের গ্রেপ্তার করার সব রকমের চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।

বরগুনা শহরের কলেজ সড়কে বুধবার সকালে প্রকাশ্যে স্ত্রীর সামনে স্বামী রিফাত শরীককে এলোপাথাড়ি কোপায় সন্ত্রাসীরা। স্ত্রী বাধা দিয়েও সন্ত্রাসীদের হাত থেকে তাকে রক্ষা করতে পারেনি।

অবস্থা আশঙ্কাকাজনক হওয়ায় তাৎক্ষণিকভাবে তাকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে শরীফের মৃত্যু হয়।

রিফাত শরীফের বাড়ি বরগুনা সদর উপজেলার ৬ নম্বর বুড়িরচর ইউনিয়নের বড় লবণগোলা গ্রামে। তার বাবার নাম আব্দুল হালিম দুলাল শরীফ। মা-বাবার একমাত্র সন্তান ছিলেন রিফাত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here