বরগুনায় ১০ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। বরগুনা জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসকরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে তাদের ডেঙ্গু আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত করেন।

আক্রান্তদের মধ্যে চারজন বর্তমানে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এরা হলেন- সদর উপজেলার বাওলকর এলাকার আছিয়া বেগম, দক্ষিণ মনসাতলী এলাকার নাইম ও সবুজ এবং কদমতলা এলাকার হালিমা।

বরগুনা জেনারেল হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, গত ৮ জুন বরগুনার ক্রোক এলাকার সাদেক, ২২ জুন পিটিআই এলাকার সাইফুল্লাহ এবং ২৩ জুন হেউলিবুনিয়া এলাকার রাব্বি জ্বরে আক্রান্ত হয়ে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসেন। পরে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে হাসপাতালের চিকিৎসকরা তাদের ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হওয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে হাসপাতালে ভর্তি করেন। কিন্ত চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের অবস্থার অবনতি হওয়ায় ১০ জুন সাদেককে এবং ২৪ জুন সাইফুল্লাহ ও রাব্বিকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এছাড়া গত ১২ জুন কড়ইতলা এলাকার ফোরকান হাওলাদার, ১৭ জুন খাকবুনিয়া এলাকার আল-আমীন এবং ২৩ জুন বদনিখালী এলাকার অসীম কুমার মন্ডল জ্বরে আক্রান্ত হয়ে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসেন। পরে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে হাসপাতালের চিকিৎসকরা তাদের ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হওয়ার কথা জানালে তারা তিনজনই বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা না নিয়ে অন্যত্র চলে যান।

ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নাইম বলেন, তিনি ঢাকা থাকেন। কয়েকদিন হলো বাড়িতে এসছেন। বাড়িতে আসার পর তিনি জ্বরে আক্রান্ত হলে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসেন। এরপর পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে চিকিৎসকরা তাকে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হওয়ার কথা জানান। বর্তমানে তিনি এই হাসপাতালেই চিকিৎসা নিচ্ছেন।

সদর উপজেলার কদমতলা হালিমা বেগম বলেন, তিনি বাড়িতেই থাকেন। সম্প্রতি তিনি কোথাও বেড়াতেও যাননি। হঠাৎ জ্বরে আক্রান্ত হয়ে তিনি হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এলে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে চিকিৎসকরা তাকে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হওয়ার কথা জানান। তখনই তিনি চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি হন।

একই কথা বলেন বাওলকর এলাকার আছিয়া বেগম।

বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. মো. কামরুল আজাদ বলেন, বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা ১০ জনকে আমরা ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত করেছি। এদের মধ্যে ছয়জন অতি সম্প্রতি ঢাকা থেকে বরগুনা ফিরেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here