বরিশালসহ বাংলাদেশের ৬৪ জেলার প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনাগুলো ঘুরে দেখছেন পর্যটক এলিজা বিনতে এলাহী। ভ্রমণের মাধ্যমে এগুলোর বর্তমান অবস্থার তথ্য সংগ্রহ করছেন তিনি। বাংলাদেশের প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনগুলো সংরক্ষণ ও এগুলোকে ঘিরে পর্যটনের গুরুত্বকে তুলে ধরাই তার লক্ষ্য।

এলিজা বিনতে এলাহী বলেন, ‘বাংলাদেশের প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনগুলোর ঐতিহাসিক গুরুত্ব রয়েছে। কিন্তু এসবের বেশিরভাগই অবহেলিত। এগুলো সরেজমিনে ভ্রমণ করে লোকশ্রুতি, লিখিত দলিল, স্থিরচিত্র ও ভিডিওচিত্র সঠিকভাবে সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করার পাশাপাশি স্থানীয় ও জাতীয়ভাবে সচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজ করছি। শিক্ষা-গবেষণা ও পর্যটন শিল্প বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে এসব।’

‘কোয়েস্ট’ নামক প্রকল্পের আওতায় ইতোমধ্যে ঢাকা, ময়মনসিংহ ও রংপুর বিভাগের সব জেলা ঘুরেছেন এলিজা। সোমবার (৪ ফেব্রুয়ারি) পাবনা ও সিরাজগঞ্জে প্রত্নতাত্ত্বিক তথ্য সংগ্রহের জন্য বের হবেন। এ দুটি জেলায় ভ্রমণ হয়ে গেলে রাজশাহী বিভাগও সম্পন্ন হয়ে যাবে। সব মিলিয়ে সংখ্যাটা দাঁড়াবে ৩৩। তিনি দেখেছেন, পরিচিত হেরিটেজ সাইটগুলোর পাশাপাশি উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলার অনেক নিদর্শন ও স্থাপনাকে ঘিরে পর্যটন শিল্প বিকাশের সুযোগ আছে।

এলিজা বিনতে এলাহী বাংলাদেশের ইউনিভার্সিটি অব সাউথ এশিয়ার সহকারী অধ্যাপক। তিনি নেদারল্যান্ডসের দ্য হেগ ইউনিভার্সিটি অব অ্যাপ্লায়েড সায়েন্সে অধ্যয়নরত। সেখানে তার গবেষণার বিষয় ‘বাংলাদেশের পর্যটন শিল্প বিকাশে হেরিটেজ ট্যুরিজমের গুরুত্ব’।

বাংলাদেশ ছাড়াও বিশ্বের ৪৬ দেশের প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন পরিভ্রমণ করেছেন এলিজা। তিনি মনে করেন, এই অভিজ্ঞতা বাংলাদেশে ‘হেরিটেজ ট্যুরিজম’ প্রসারে ভূমিকা রাখার ক্ষেত্রে তার কাজে লাগবে। এশিয়া ভ্রমণের অভিজ্ঞতা নিয়ে রয়েছে তার দুটি তথ্যবহুল প্রকাশনা “এলিজা’স ট্রাভেল ডায়েরি” ও “এলিজা’স ট্রাভেল ডায়েরি-২”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here