পবিত্র মাহে রমজান মাস শেষে আসবে খুশির ঈদ তবে এবারের ঈদের বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসের প্রভাবে কিছুটা আত্মসংযমের মধ্য দিয়ে উদযাপনের আহ্বান সর্বমহলের। তারি ধারাবাহিকতায় গত ২০ মে বুধবার সকাল ১১ টার দিকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় বরিশাল এর সম্মেলন কক্ষে ইমাম সমিতি এবং ইসলামিক ফাউন্ডেশন এর সমন্বয়ে জেলা প্রশাসনের সাথে স্বাস্থ্য বিধি অনুসরণপূর্বক পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজের জামাত আদায় বিষয়ে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক বরিশাল এস, এম, অজিয়র রহমান। এসময় উপস্থিত ছিলেন ইসলামী ফাউন্ডেশনের প্রতিনিধি, ইমাম সমিতির প্রতিনিধি ও পুলিশসহ অন্যান্য দপ্তরের প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন। সভায় বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়। ইতিমধ্য মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে উন্মুক্ত স্থানে বড় পরিসরে ঈদের জামাত পরিহারের নির্দেশনা প্রদান করে বর্তমানে বিদ্যমান বিধি-বিধান অনুযায়ী ঈদের জামাত সংক্রান্ত নির্দেশনা প্রদান করেছে। তারই ধারাবাহিকতায় স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ কর্তৃক জারীকৃত নির্দেশাবলী অনুসরণ পূর্বক বিশেষ সতর্কতামূলক অনুসরণপূর্বক নিম্নবর্ণিত শর্তসাপেক্ষে ১৪৪১ হিজরী ২০২০ সালের পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজের জন্য অনুরোধ করা হয়। ইসলামিক শরীয়তে ঈদু-উল ফিতরের নামাজ আদায়ের ব্যাপারে উৎসাহিত করা হয়েছে কিন্তু বর্তমানে বাংলাদেশে করোনার প্রাদুর্ভাবের কারণে মুসলিমদের জীবন ঝুঁকি বিবেচনা করে সরকার কর্তৃক মসজিদের ভিতরে ঈদুল ফিতরের জামাত আদায়ের জন্য নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে।

সরকার কর্তৃক নির্দেশনার আলোকে এবারের ঈদুল ফিতরের জামাত মসজিদের বাহিরে করা যাবেনা মসজিদের ভিতরে করতে হবে। মুসল্লিদের সুবিধার্থে মসজিদে সর্বাধিক জামাতের আয়োজন করতে হবে এক্ষেত্রে প্রথম জামাত সকাল ৭ টায় শুরু করে সর্বশেষ জামাত সকাল ১১ টায় অনুষ্ঠিত করা যেতে পারে এ লক্ষ্যে মসজিদ পরিচালনা কমিটিকে একাধিক ইমাম নির্ধারণ করে রাখতে হবে, প্রতিটি জামাত শেষে করোনা ভাইরাস হতে মুক্তির জন্য মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের দরবারে দোয়া কামনা করতে হবে। মসজিদে জামায়াতে কার্পেট বিছানো যাবে না। নামাজের পূর্বে সম্পূর্ণ মসজিদ জীবাণুনাশক দ্বারা পরিষ্কার করতে হবে। মুসুল্লীগণকে নিজ নিজ জায়নামাজে নামাজ আদায় করতে হবে। অাবশ্যিকভাবে মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। অজু নিজ বাসা থেকে করে আসতে হবে। স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ কর্তৃক জারীকৃত সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ সকল নির্দেশনা মেনে চলতে হবে মসজিদের প্রবেশ মুখে হ্যান্ড স্যানিটাইজার হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রাখতে হবে। কাতারবদ্ধ হওয়ার ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে এবং এক কাতার অন্তর অন্তর কাতার করতে হবে। শিশু বয়োবৃদ্ধ এবং অসুস্থ্য ব্যক্তিগণ ঈদু-উল ফিতরের জামাত অংশগ্রহণ করতে পারবে না। উল্লেখিত বিষয় সমূহ সভায় সিদ্ধান্ত গ্রহীত হয়। জেলা প্রশাসন বরিশালের পক্ষ থেকে উল্লেখিত বিষয় সমূহ মেনে এবারের ঈদের নামাজ জামাতে আদায় করার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান জেলা প্রশাসক বরিশাল এস, এম, অজিয়র রহমান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here