বরিশাল বিভাগেই দীর্ঘ এক যুগ ধরে বন্ধ রয়েছে বিভিন্ন জেলার ২৩টি খাদ্যগুদাম (এলএসডি)।

বছর কয়েক আগে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর তাঁর এক কলামে লিখেছিলেন, ‘জার্মান সহায়তায় অনেক বছর আগে “সগরিব” প্রকল্পের আওতায় ১১৪টি গ্রামীণ গুদাম নির্মাণ করা হয়েছিল কৃষকদের উৎপাদিত শস্য জমা রাখার জন্য। গুদামগুলো বিআরডিবির অধীনে অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে আছে বলে শোনা যায়। গরিব দেশে সম্পদের এমন অপচয় দুঃখজনক। এই ১১৪টি গুদাম মেরামত করে ব্যবহারোপযোগী করা হোক এবং বাজেটে এর জন্য বরাদ্দ রাখা হোক। “গ্রামীণ বিপণন সংস্থা” নামে একটি নতুন সংস্থা গঠন করে গুদামগুলো ওই সংস্থার কাছে হস্তান্তর করা যায়। একটি দীর্ঘমেয়াদি সুষ্ঠু পরিকল্পনার আওতায় পর্যাপ্ত পল্লি গুদাম নির্মাণ করা যায়। সমবায়ভিত্তিক পল্লি বিপণনপ্রক্রিয়া গড়ে তুলতে পল্লি গুদামগুলো সহায়ক ভূমিকা রাখবে।’ এই হিসাবের বাইরে তদানীন্তন আইআরডিপির সঙ্গে কেয়ারের করা খাদ্যগুদাম, বিআরডিবির পাইলট প্রজেক্টের অধীনে তৈরি গুদামগুলো কথায় গেল।

এ ছাড়া বিএডিসি, তথা কৃষি উন্নয়ন করপোরেশনের অপহৃত–অব্যবহৃত লিজে ফেলে রাখা গুদামের কথা লিখলে কাগজে কুলাবে না। বিএডিসির অমুক পরিত্যক্ত রেস্ট হাউস ও গুদাম তমুকের দখলে—এমন খবর এখনো ছাপা হয়। নিজেদের মধ্যে একটু সমন্বয় করলে রাখার জায়গা নিয়ে কোনো হায়-আফসোস থাকার কথা নয়।

তারপরও একটা সরকার যদি চায়, তাহলে ধান কৃষকের বাড়িতেও রাখা যায়। যে কৃষক যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করে আমাদের গদিতে বসিয়েছে, সে কৃষক সামান্য কটা ধান মেরে দিয়ে পালিয়ে যাবে না, যে বিনা প্রশ্নে অস্ত্র রাজকোষাগারে জমা দিতে পারে, সে আর যা–ই হোক, ধান চুরি করবে না।

কৃষককে এখনই বাঁচিবার একটা উপায় কহিতে হবে। সেটা কী হতে পারে? অবিলম্বে সব ধরনের ধান-চাল আমদানি বন্ধ করতে হবে। কৃষক যতটা ধান বেচতে চায়, তার সবটাই ন্যায্য মূল্যে কিনে নিতে হবে। গুদামের সামনে বসে লাল সালু টাঙিয়ে ধান কেনার মহরত করলে কৃষক ধানের দাম পাবে না—এটা খোদ কৃষিমন্ত্রী স্বীকার করেছেন। ট্রাক নিয়ে তাদের হাটে হাটে যেতে হবে। সরকার না পারলে চাতালমালিকদের এই কাজে লাগানো যায়। ধান কেনার জন্য কম সুদে ঋণ দিলে তারা কালকেই মাঠে নেমে যাবে। তাতে আখেরে চাতালমালিকদের লাভ হবে, তারা আরও মোটা হবে। পুঁজিবাদী ব্যবস্থায় কৃষককে বাঁচানোর আর কোনো দরজা তো খোলা রাখা হয়নি।

ন্যায্য মূল্যে ধান কিনলে চালের দাম বেড়ে যাবে বলে যাঁরা যুক্তি দেখাচ্ছেন, তাঁদের জন্য তরিকুল ইসলামের পাঠানো এই হিসাবটা এখানে বিবেচনার জন্য পেশ করা হলো:

যদি ধানের মণ ৬০০ টাকা হয়, তাহলে ১ মণ চালের দাম কত? ১ মণ (৪০ কেজি) ধান থেকে কমপক্ষে ২৮ থেকে ৩০ কেজি চাল হয়। ধরুন, ১ মণ ধান থেকে ৩০ কেজি চাল তৈরি করতে খরচ লাগে ১০০ টাকা, তাহলে ৩০ কেজি চালের দাম পড়ে ৬০০ + ১০০ = ৭০০ টাকা। যদি ৩০ কেজি চাল ক্রেতা পর্যন্ত পৌঁছে দিতে আরও ১০০ টাকা খরচ হয়, তাহলে ৩০ কেজি চালের দাম (৬০০ + ১০০ + ১০০) = ৮০০ টাকা হলে ১ কেজি চালের দাম = ৮০০/৩০ = ২৬.৬৬ টাকা, তাহলে এক মণের দাম ২৬.৬৬ X ৪০ = ১০৬৬.৬৬ টাকা।’ অতএব, ১ মণ চালের দাম পড়ে ৪০ ভ্যাট ১৫% = ১৬০ টাকা, তাহলে ১ মণ চালের মোট দাম পড়ে ১০৬৬.৬৬ + ১৬০ = ১২২৬ টাকা। বাংলাদেশে বাজার থেকে ১ মণ চাল কিনতে লাগে কমপক্ষে ২৪০০ টাকা। ১ মণ চাল উৎপাদন করে ক্রেতার কাছে পৌঁছানো পর্যন্ত খরচ পড়ে ১২২৬ টাকা, কিন্তু বাজার থেকে আমাদের (সাধারণ মানুষের) ১ মণ চাল কিনতে হয় কমপক্ষে ২৪০০ টাকায়। মধ্যবর্তী থাকে ২৪০০-১২২৬ = ১১৭৪ টাকা। আমার প্রশ্ন ১১৭৪ টাকা যায় কোথায়?

আমাদের উচিত ধান নিয়ে আর ধানাইপানাই না করে দাম দিয়ে ধান কেনার ব্যবস্থা করা।

(জনাব ইব্রাহিম খালেদ ও ভাষাসৈনিক আব্দুল মতিনের নাম ছাড়া অন্যান্য নাম ও স্থানের নাম বদলিয়ে দেওয়া হয়েছে)

গওহার নঈম ওয়ারা: দুর্যোগ ব্যবস্থাপনাবিষয়ক লেখক ও গবেষক।
nayeem5508@gmail.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here