বরিশালের উজিরপুর উপজেলার হারতা ইউনিয়নের প্রত্যন্ত কালবিলা গ্রামে পাঁচ বছরের প্রেমের সম্পর্কে স্থানীয় একটি মন্দিরে নিয়ে প্রেমিকাকে শাখা-সিদুঁর পরিয়ে বিয়ে করেছিলো প্রেমিক। বিষয়টি উভয় পরিবারের মধ্যে জানাজানি হওয়ার পর প্রেমিক কলেজ ছাত্রকে অপহরন করে অমানুষিক নির্যাতনের পর মুখে বিষ ঢেলে হত্যার চেষ্ঠা চালিয়েছে কলেজ ছাত্রী প্রেমিকার বাবা ও তার সহযোগিরা।

মুমূর্ষ অবস্থায় সুভাষ দাস (২৩) নামের ওই প্রেমিককে শুক্রবার রাতে তার স্বজনরা উদ্ধার করে বরিশাল শেরই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেছে। সুভাষ কালবিলা গ্রামের বাসিন্দা সুকুমার দাসের পুত্র। এবং কোটালীপাড়ার ভাঙ্গারহাট কলেজের অনার্স তৃতীয় বর্ষের ছাত্র।

শনিবার দুপুরে হাসপাতালে শষ্যাশয়ী সুভাষ দাস জানান, একই গ্রামের সুশীল বাড়ৈর কন্যা কলেজ ছাত্রী সিমা বাড়ৈর (১৯) সাথে প্রায় পাঁচ বছর ধরে তার প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছে। অতিসম্প্রতি তারা উভয়ের সম্মতিতে  মন্দিরে গিয়ে শাখা-সিদুঁর পরিয়ে তিনি সিমাকে বিয়ে করেন।

সুভাষ দাস আরও জানান, বিষয়টি উভয়পরিবারের মধ্যে জানাজানি হওয়ার পর সিমার পরিবার ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। এরইমধ্যে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় অপরিচিত ব্যক্তিরা হারতা বাজার থেকে কৌশলে তাকে অপহরন করে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে অজ্ঞাতস্থানে নিয়ে সিমার বাবা সুশীল বাড়ৈর উপস্থিতিতে তাকে অমানুষিক নির্যাতন করে হত্যার উদ্দেশ্যে মুখে বিষ ঢেলে দেয়া হয়।

সুভাষের ভাই উত্তম দাস জানান, স্থানীয় ইউপি সদস্য কৃষ্ণ বাড়ৈ তার ভাইকে মুমূর্ষ অবস্থায় হারতা বাজারের পল্লী চিকিৎসক নগেন বাড়ৈর কাছে নিয়ে আসেন। এসময় সুভাষ আত্মহত্যার জন্য বিষপান করেছে বলে এলাকায় ছড়িয়ে দেয়া হয়। খবর পেয়ে তারা ঘটনাস্থলে পৌঁছে মুমুর্ষ অবস্থায় সুভাষকে উদ্ধার করে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানান তিনি ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here