বরিশালের উজিরপুরে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের স্বামী পরিত্যাক্তা এক সন্তানের জননীকে ধর্ষেেণর পরে পরিবারের লোকজন নিয়ে মারধরের অভিযোগে উঠেছে মুসলিম পরিবারের এক বখাটে যুবকের বিরুদ্ধে।

এই ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় অভিযুক্ত বখাটে যুবক সজিম মোল্লাসহ তিন জনকে শুক্রবার দুপুর সাড়ে ৩টার দিকে গ্রেফতার করেছে উজিরপুর মডেল থানা পুলিশ। ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতারকৃত জসিম মোল্লা উপজেলার ওটরা ইউনিয়নের তারাশিয়া গ্রামের আব্দুল আজিজ মোল্লার ছেলে।

এই ঘটনায় শুক্রবার বিকালে ধর্ষিতা নারী বাদী হয়ে উজিরপুর মডেল থানায় ধর্ষণ ও নির্যাতনের অভিযোগ এনে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে উজিরপুর মডেল থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) শিশির কুমার পাল জানান, স্বামী পরিত্যাক্তা নারীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত ১৮ জুলাই রাত ১০টার দিকে বাড়ির পাশ্ববর্তী বাগানে নিয়ে শারীরিক সম্পর্ক করে সজিব মোল্লা।

যা স্থানীয় দেলোয়ার হোসেন নামের জনৈক ব্যক্তি দেখতে পেয়ে ডাক-চিৎকার দেয়। এতে স্থানীয়রা ছুটে এসে বখাটে সজিবকে আটক করে। এ ঘটনার জের ধরে বখাটে সজিদের ভাই মহিম, ইকবাল, জসীম মোল্লা ও ভগ্নিপতি সজীব এবং স্থানীয় মহিলা ইউপি সদস্য হাসি বেগমের স্বামী ছালেক বেপারী স্বামী পরিত্যাক্তা নারীর উপর হামলা করে।

ওসি বলেন, ঘটনাটি জানাজানি হলে, শুক্রবার ওই নারীকে উদ্ধার করার পাশাপাশি তিনি বাদী হয়ে উল্লেখিতদের অভিযুক্ত করে একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলার পরিপ্রেক্ষিতে উজিরপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শেখ ফরিদ অভিযান চালিয়ে ধর্ষক সজিব সহ তিন আসামীকে গ্রেফতার করে।

তাছাড়া ধর্ষণের অভিযোগকারী স্বামী পরিত্যাক্তা নারীকে উদ্ধার করে আইনী সহায়তা ও চিকিৎসার জন্য বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করা হয়েছে বলে ওসি নিশ্চিত করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here