২৫০ শয্যার হাসপাতালে একটি মাল্টিস্টোরেড বিল্ডিং থাকে, কিন্তু বরিশাল জেনারেল (সদর) হাসপাতালে যা দেখলাম এখানে অনেক পুরাতন ভবনগুলো ব্যবহার করা হচ্ছে। যা পরিত্যাক্ত ভবনের মতো বসবাসের উপযোগী নয়, এগুলো মেরামত করে ব্যবহার করা যে হচ্ছে তাও আমরা ঝূকিপূর্ণ বলে মনে করছি। যা ভেঙে ২৫০ শয্যার নতুন হাসপাতাল ভবন নির্মাণের কাজ দ্রুত শুরু হওয়ার কথা জানিয়েছেন স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. মুরাদ হাসান।

বুধবার (২০ মার্চ) বেলা ১১টায় বরিশাল জেনারেল হাসপাতাল, মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র এবং নির্মাণাধীন ২০০ শয্যা বিশিষ্ট শহীদ সুকান্ত বাবু শিশু হাসপাতাল পরিদর্শন করেন।

পরে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, জেনারেল হাসপাতালের পুরাতন ৫টি ভবন খুবই ঝূঁকিপূর্ণ। ১০০ শয্যার হাসপাতাল ২৫০ শয্যায় উন্নীত এবং ভবন নির্মানের সিদ্ধান্ত আগেই দেওয়া আছে। স্থাপত্য বিভাগের অনাপত্তি নিয়ে এগুলো ভেঙে নতুন ভবন নির্মানের কাজ শুরু করা হবে। এমনকি ভবিষ্যতে জনসংখ্যার ওপর ভিত্তি করে চাহিদা অনুযায়ী ভবন বর্ধিত করার চিন্তাও আমাদের রয়েছে। তবে এই হাসপাতাল এবং মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র হাসপাতালের চিকিৎসা ব্যবস্থায় সন্তোষ প্রকাশ করেন তিনি।

এদিকে বরিশাল নগরের আমানতগঞ্জ এলাকায় ২০০ শয্যা বিশিষ্ট শহীদ সুকান্ত বাবু শিশু হাসপাতাল নির্মান কাজ পরিদর্শনে গিয়ে ঠিকাদার ও গণপূর্ত বিভাগের কর্মকর্তাদের প্রতি ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন তিনি।

এসময় প্রতিমন্ত্রী নির্মাণাধীন শিশু হাসপাতাল নিয়ে যতটুকু সমস্যা রয়েছে তা সমাধান করে দ্রুত গতিতে নির্মাণ কাজ করার নির্দেশ দেন। পাশাপাশি এ বছরের মধ্যে হাসপাতাল ভবন একটা পর্যায়ে উন্নীত হবে বলেও তিনি আশা প্রকাশ করেন।

এর আগে ভোর রাতে নৌ পথে ঢাকা বরিশালে আসেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. মুরাদ হাসান-এমপি এবং সকালে প্রথমে নগরের কালিবাড়ি রোডে মা ও শিশু স্বাস্থ্য কেন্দ্রে পরিদর্শনে যান।

পরিদর্শনকালে বরিশাল সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ ছাড়াও বরিশালের জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান, শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ এর অধ্যক্ষ ডা. সৈয়দ মাকসুমুল হক, শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. বাকির হোসেন, বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. মাহবুবুর রহমান বরিশাল জেলা সিভিল সার্জনডা. মো. মনোয়ার হোসেনসহ স্বাস্থ্য বিভাগের অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে দুপুর পৌনে ১টার দিকে প্রতিমন্ত্রী বাকেরগঞ্জ উপজেলার কবিরকাঠি কমিউনিটি ক্লিনিক পরিদর্শনে যান প্রতিমন্ত্রী। সেখান থেকে ফিরে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পরিদর্শন করেন তিনি।

পরে সেখানে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ, হাসপাতাল, পরিবার পরিকল্পনা ও স্বাস্থ্য বিভাগের চিকিৎসকদের সাথে মতবিনিময় করবেন প্রতিমন্ত্রী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here