এবার ঈদ উল আযহায় বরিশাল-ঢাকা নৌ রুটে নতুন করে যুক্ত হচ্ছে এমভি কুয়াকাটা-২ নামের আরো একটি বিলাশবহুল লঞ্চ। ঢাকায় যার চুড়ান্ত ট্রাইল দেয়া হয়েছে শুক্রবার বিকালে। আগস্টের প্রথম তারিখেই লঞ্চটি নৌ বহরে যুক্ত করার আসা প্রকাশ করেছেন নৌযানটির মালিক মো. কালাম।

তিনি বলেন, গত ঈদ উল ফিতরেই আমরা যাত্রী সেবায় আসতে চেয়েছিলাম। কিন্তু যাত্রী সেবার মান উন্নয়ন এবং প্রস্তুতি সম্পন্নে বিলম্বতার কারনে তা সম্ভব হয়নি। তবে ঈদের পর থেকে শুক্রবার পর্যন্ত কয়েক দফায় ট্রাইল দেয়া হয়েছে। কোন প্রকার সমস্যা দেখা যায়নি। তাই চেষ্টা করে দেখছি আগস্টের প্রথম তারিখেই লঞ্চটি উদ্বোধন সম্ভব কিনা। ওইদিন উদ্বোধন না হলেও বিশেষ সার্ভিসের টিকেট বিক্রি কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানিয়েছেন নৌ-যানটির মালিক।

অপরদিকে বরিশাল-ঢাকা নৌ-রুটের সুরভী শিপিং লাইন্স এর কাউন্টারের দায়িত্বে থাকা ফারহান নামক ব্যক্তি জানিয়েছেন, ঈদ উল আযহা উপলক্ষ্যে অগ্রিম টিকেটের আবেদন গ্রহন গত ২৩ জুলাই সম্পন্ন হয়েছে। এর মধ্যে যাচাই বাছাইও প্রায় শেষ। আসা করা যাচ্ছে ২৭ জুলাই থেকে ভোক্তা পর্যায়ে টিকেট পৌছে দেয়া হবে।

এদিকে বরিশাল-ঢাকা নৌ রুটের বিলাশবহুল যাত্রীবাহী নৌ-সার্ভিস সালমা শিপিং লাইন্স এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মঞ্জুরুল আহসান ফেরদৌস বলেন, পূর্বের নিয়মেই আমরা ঈদ সার্ভিসের অগ্রিম টিকেট বিক্রি কার্যক্রম শুরু করেছি। এজন্য গত সপ্তাহে স্থানীয় পত্রিকায় বিজ্ঞাপনও প্রচার করেছি। কোন প্রকার প্রকার স্লিপ পদ্ধতিতে নয়, বরং যিনি আগে আসবেন তিনিই লঞ্চের টিকেট পাবেন।

বাংলাদেশ যাত্রীবাহী নৌ-পরিবহন সংস্থা (যাপ) এর কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ও সুন্দরবন নেভিগেশন এর চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান রিন্টু বলেন, স্পেশাল সার্ভিসের বিষয়ে এখনো পুরোপুরিভাবে সিদ্ধান্ত হয়নি। আগামী ১ অথবা ২ আগস্ট ঢাকায় লঞ্চ মালিকদের সভা হবে। ওই সভার মাধ্যমে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।

তিনি বলেন, যেহেতু ১২ আগস্ট ঈদ উল আযহা তাই ৮ আগস্ট থেকে বিশেষ সার্ভিষ শুরুর সম্ভাবনাই বেশি। তাই ১ আগস্ট থেকে সুন্দরবন নেভিগেশন কোম্পানির লঞ্চগুলোর বিশেষ সার্ভিসের অগ্রিম কিকেট বিক্রি শুরু হবে।

তিনি বলেন, ১২ আগস্ট ঈদ হলে যাত্রীদের চাপ বাড়বে ১৫ আগস্টে। সে জন্য পরবর্তী ২০ জুলাই পর্যন্ত বিশেষ সার্ভিস চলবে। তাই ৮ জুলাই থেকে ২০ জুলাই পর্যন্ত ঈদের বিশেষ সার্ভিসের আগে ও ফিরতি যাত্রার আগাম টিকেট বিক্রি করছে।

অপরদিকে বিআইডব্লিউটিএ’র বরিশাল বন্দর কর্মকর্তা এবং নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের উপ-পরিচালক আজমল হুদা মিঠু সরকার বলেন, আগামী ২৮ জুলাই ঢাকায় নৌ পরিবহন অধিদপ্তরে ঈদ উল আযহা সম্পর্কিত বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। ওই বৈঠক থেকেই বিশেষ সার্ভিস সহ সার্বিক বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে। তবে ৮ আগস্ট থেকেই বিশেষ সার্ভিস চালুর সম্ভাবনা রয়েছে।

তিনি বলেন, বরিশাল-ঢাকা নৌ রুটে বর্তমানে দিবা সার্ভিসের ওয়াটার বাস সহ মোট ২৩টি নৌ যান নিয়মিত চলাচল করছে। তবে ঈদ উল আযহায় এই রুটে নতুন আরো একটি লঞ্চ যুক্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সেটু হলো এমভি কুয়াকাটা-২। লঞ্চ মালিক বিষয়টি আমাকে নিশ্চিত করলেও এখন পর্যন্ত কোন কাগজপত্র আমি পাইনি। ওই লঞ্চটি চালু হলে সরাসরি বরিশাল ঢাকা নৌ রুটে ২৪ নৌ যানের মাধ্যমে ঈদের বিশেষ সার্ভিস দেয়া হবে।

এদিকে রাষ্ট্রিয় নৌ-পরিবহন সংস্থা বিআইডব্লিউটিসি’র সহকারী মহা ব্যবস্থাপক সৈয়দ আবুল কালাম আজাদ বলেন, পূর্বের ন্যায় এবারও ঢাকা-মোড়েলগঞ্জ ভায়া বরিশাল নৌ রুটে সংস্থার ৫টি নৌ-যানে বিশেষ সার্ভিস দেয়া হবে। যা শুরু হবে ৮ আগস্ট থেকে এবং শেষ হবে ঈদের পরে এক সপ্তাহ পর্যন্ত। বিশেষ সার্ভিসের টিকেট বিক্রি শুরু হবে ১ আগস্ট থেকে। যা ঢাকা থেকে বা অনলাইনের মাধ্যমে বুকিং দেয়া যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here