টানা ৩৫ দিন ছুটি শেষে আগামিকাল খুলছে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়। লম্বা ছুটি শেষে একাডেমিক কোনো প্রভাব পড়বে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে নবনিযুক্ত ট্রেজারার অধ্যাপক ড. মোঃ বদরুজ্জামান ভূঁইয়া বলেন, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় হবে সেশনজট মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়।কয়েকটি বিভাগে সেশনজট রয়েছে সেগুলো আগামিতে সেশনজট থাকবেনা বলে জানান তিনি।

 

তিনি বলেন, ৩৫ দিনের ছুটিতে শিক্ষার্থীদের একাডেমিক কোনো প্রভাব ফেলবে না। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় হবে একটি শিক্ষার্থীবান্ধব প্রতিষ্ঠান।
উপাচার্য মহোদয়ের নির্দেশনায় আমরা সেশনজটমুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় গড়তে বদ্ধপরিকর।

 

শিক্ষার্থীরা বলছে, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে কয়েকটি বিভাগে সেশনজট রয়েছে। সেই বিভাগগুলোতে সেশনজট মুক্ত হলে আমাদের কর্মক্ষেত্রে আরো বেশি অবদান রাখতে পারবো বলে আশাবাদী। অনেকে সেশনজটে হতাশায় ভুগেন। তারপরেও ইতোমধ্যে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় গুগলে চাকরি, বিসিএস,সহকারী জজ,দুদক,বিদেশে উচ্চশিক্ষা সহ অনেক কর্মক্ষেত্রে অবদান রেখে চলেছে।আমরা মনে করি পরিপূর্ণভাবে সেশনজট মুক্ত হলে সংখ্যাটা আরো বেশি হবে।

 

গত ১০ এপ্রিল ডেপুটি রেজিস্ট্রার মো. বাহাউদ্দিন গোলাপ স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে গ্রীষ্মকালীন,মহান মে দিবস,শব-ই কদর,জুমাতুল বিদা ও ঈদ-উল ফিতর উপলক্ষে ৩৫দিন ছুটির ঘোষণা করা হয়েছিলো। আজ ২৩ মে ছুটির শেষ দিন। আগামিকাল (২৪ মে) থেকে শুরু হবে সকল একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম।

 

উল্লেখ্য, ১৯ এপ্রিল (মঙ্গলবার) থেকে ২৩ মে (সোমবার) পর্যন্ত একটানা ৩৫ দিন বিশ্ববিদ্যালয় ছুটি ঘোষণা করেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। তবে, বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকাকালীন সময়ে সিকিউরিটিসহ অন্যান্য জরুরি সেবা বলবৎ থাকবে বলে জানানো প্রজ্ঞাপনে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here