শামীম আহমেদ॥ বরিশাল সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ বলেন, ভারত বাংলাদের মহান স্বাধীনতা মুক্তিযুদ্বে এদেশের মানুষের পাশে এসে দড়িয়ে বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দিয়ে শুধু আশ্রয় দেয়নি এদেশকে শত্র“ মুক্ত করতে সকল ধরনের সাহায্য সহযোগীতা করেছে। তাই বর্তমান বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী চিরদিন এই বন্ধুতার ভালবাসা ধরে রাখবে।

 

 

তিনি বলেন এখন থেকে ভারতীয় ভিসার জন্য জন্য অন্য কোথাও যেতে হবে যা বরিশালে বসেই সম্ভব হবে। সেই সাথে আগামীতে বরিশাল থেকে ভারতে যাওয়ার জন্য বরিশাল এক্সপ্রেস নামে নতুন একটি পরিবহন সার্ভিস চালু করার বিষয়টি তিনি বিবেচনায় নেয়ার কথাও বলেন।

 

মেয়র এসময় আরো বলেন ভারত সরকার ক্রিকেট টেস্ট ম্যাচ খেলাকে কেন্দ্র করে আমাদের প্রধানমন্ত্রীকে যে তাদের দেশের মাটিতে যে সম্মানা দিয়েছে তাতে এদেশের সম্পর্ক আরো গভিরতায় নিয়ে যাবে।

 

তাছাড়া ভারতের সাথে আমাদের বাংলাদেশের পারস্পারিক সম্পর্ক ও বন্ধুতার ভালবাসা চিরদিন এদেশের মানুষ মনে রাখবে।

আজ সোমবার (২৫ই) নভেম্বর সকাল ১১ টায় বরিশাল- ঢাকা মহা সড়ক সংলগ্ন নগরীর কাশিপুরের ভারতীয় ভিসা আবেদন কার্যক্রম সেন্টার অফিস উদ্ধোধন কালে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

 

এসময় আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় অতিরিক্ত হাই রাস্ট্রদূত রাজেশ কুমার রায়না (খুলনা), বরিশাল মেট্রোপালটন পুলিশ কমিশনার মোঃ শাহাবুদ্দিন খান পিপিএম (বার)।

 

উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র এ্যাড, রফিকুল ইসলাম খোকন, বরিশাল বজ্রমোহন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ,প্রফেসর মোঃ শফিকুর রহমান সিকদার।

এর পূর্বে প্রধান অতিথি সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ্ ফিতা কেটে আনুষ্ঠানিকভাবে ভারতীয় ভিসা বরিশাল অফিসের উদ্ধোধন করেন।

 

অন্যদিকে তাদের দেয়া এক প্রেসনোটে বলা হয়েছে এখন থেকে বৈধ ভিসায় ভারতে ভ্রমণকারী কোন বাংলাদেশী নাগরীক ভারতে থাকাকালীন সময়ে অসুস্থ হয়ে পড়লে,তাকে ভারতীয় হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার জন্য তার প্রাথমিক ভিসাকে মেডিকেল ভিসায় রুপান্তর করার প্রয়োজন হবে না।

 

এছাড়া কোন বিদেশী নাগরীক ভারতে প্রবেশের আগে থেকেই আক্রান্ত এমন রোগের (অংগ প্রতিস্থাপন ছাড়া) ইনডোর মেডিকেল ট্রিটমেন্ট প্রাথমিক ভিসাতে করতে পারবে তারা।

বরিশালে ভিন্ন আঙ্গিকে ভারতীয় অফিস কার্যক্রম চালু করায় এখন থেকে এই অঞ্চলের মানুষের ভিসা পাওয়ার ক্ষেত্রে মানুষের দূর্ভোগ শুণ্যের কোঠায় নিয়ে আসবে বলে স্থানীয় সাধারন ভিসা আবেদনকারীরা বলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here