গতকাল ২৮ মার্চ রাত ১০ টায় বরিশাল জেলার মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার কালাবদর ও গজারিয়া নদি থেকে জাটকা নিধন প্রতিরোধ কার্যক্রমের নিষিদ্ধকালীন সময়ে জাটকা (১০ ইঞ্চি ছোট ইলিশ) মাছ আহরণ করা এবং অবৈধ জাল দিয়ে মাছ আহরণ অবস্থায় আটক করা হয়। জাটকা ইলিশ আহরণ করার অপরাধে মোবাইল কোর্ট অভিযান চালিয়ে ২১ জন জেলেকে আটক করা হয়েছে।
মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট জয়দেব চক্রবর্তী বরিশাল, এসময় প্রসিকিউশন অফিসার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিমল চন্দ্র দাস, মৎস্য কর্মকর্তা (ইলিশ) জেলা মৎস্য অধিদপ্তর বরিশাল। আরও উপস্থিত ছিলেন নৌ পুলিশ এবং কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশের সদস্যরা।
অভিযানের সময় কালাবদর ও গজারিয়া নদি থেকে মোঃ নুরু ইসলাম খাঁ (৬৫), মোঃ আলম বেপারী (৪০), মোঃ মোস্তফা (৩৫), মোঃ হাসান আলী শিকদার (৫০), মোঃ মনির হাওলাদার (২৫), মোঃ এছাক বয়াতী (৬৫), মোঃ জাহিদ সরদার (৫৪), মোঃ কাঞ্চন দর্জি (৪০), মেঃ ফারুক বেপারী (৩৭) কে জাটকা ইলিশ আহরণ করার অপরাধ হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয় পরে তাদেরকে দন্ড বিধি আইন ১৮৬০ এর ১৮৮ ধারা লংঘন করার অপরাধে শাস্তির আওতায় সবাইকে ১ মাসের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়। এছাড়া মোঃ শাহিন (১৯), মোঃ মজিবর মাঝি (৪০), মোঃ মোতালেব হাওলাদার (৬০), মোঃ দেলোয়ার মোল্লা (৫০), মোঃ আলামিন গাজী (২০), মোঃ ওসমান গনি (১৯), মোঃ বাছেত মাঝি (৪০), মোঃ ভাগোন আলী বাড়ী (৩৫), মোঃ হারুন বিশ্বাস (৩৫), মোঃ মনির হাওলাদার (২৫), মোঃ জামাল আকন (২৫) কে জাটকা ইলিশ আহরণ করার অপরাধ হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয় এসময় তাদের কাছ থেকে ১০ কেজি ১০ ইঞ্চির নিচের জাটকা ইলিশ পাওয়া যায়।
জাটকা ইলিশ ধরার অপরাধে তাদের মৎস্য রক্ষা ও সংরক্ষণ আইন ১৯৫০ এর ৪ ধারা এবং মৎস্য সংরক্ষণ বিধিমালা ১৯৮৫ এর বিধি ১৩ (১) নং লংঘন করার অপরাধে ৫ এর ১ ধারা অনুযায়ী শাস্তির আওতায় সবাইকে পাঁচ (৫০০০) হাজার টাকা অর্থ জরিমানা আদায় করা হয়, মেট জরিমানার পরিমাণ পঞ্চান্ন (৫৫০০০) হাজার টাকা। পরে জব্দ কৃত জাটকা ইলিশ এতিমখানা ও গরীব মানুষের মাঝে বিতরণ করা হয়। ভবিষ্যতেও জেলা প্রশাসনের এরূপ তৎপরতা ও অভিযান অব্যাহত থাকবে মর্মে বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট জয়দেব চক্রবর্তী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here