সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম অর্থাত সাইবার জগতের অন্যতম ভয়ানক সন্ত্রাস নিয়াজ মোহাম্মদ রনি (২৮) গ্রেপ্তারের খবরটি যেন গোটা বরিশাল বাসীকে স্বস্তি এনে দিয়েছে। অবশ্য এর মাস দুয়েক আগে তার গুরুজন বলে পরিচিত শেখ রিয়াদ মোহাম্মদ নুরের গ্রেপ্তারের খবরটিও যেনম ছিলো আলোচিত ও স্বস্তিরও বটে। এ দুজনই বরিশাল শহরের বাসিন্দা। ফলে তাদের দুজনেই কারাবাসে থাকার বিষয়টি বেশ আলোচিত হচ্ছে। বিশেষ করে তাদের গ্রেপ্তার পরবর্তী কারাবাসের খবর বরিশালের সুশিল সমাজকেও স্বস্তি দিয়েছে।

তাদের উভয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ রাষ্ট্রের সিনিয়র অর্থাৎ বিশিষ্টজনদের নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য সমাজিক যোগযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার। পাশাপাশি রাষ্ট্রের গোপন নথি বা সরকারের দায়িত্ব প্রাপ্তদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রকাশ করারও অভিযোগ করা হচ্ছে। নিয়াজ নামের ব্যক্তিকে দুই দিন আগে বরিশাল শহরের নথুল্লাবাদ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে বরিশাল পুলিশের সাইবার ক্রাইম ইউনিট ও গোয়েন্দা পুলিশের একটি যৌথ টিম।

এ ঘটনায় পুলিশ বাদি হয়ে গ্রেপ্তার নিয়াজসহ অজ্ঞাত আরও বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে সাইবার অপরাধের অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করে। বর্তমানে নিয়াজ কারান্তরিন। এদিকে বিগত সময়ে তিনি যেসব ব্যক্তি বিশেষকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করেছেন তারাও সংক্ষুব্ধ। বিশেষ করে সুশিল সমাজ। তারা চাইছেন- এই ভয়ানক সন্ত্রাসের কঠোর শাস্তি। অবশ্য পুলিশের পক্ষ থেকেও কঠোর শাস্তি ব্যবস্থা জোরদার করতে পদক্ষেপ লক্ষনিয়। পুলিশ জানিয়েছে বিশিষ্টজনদের বিরুদ্ধে আপত্তিকর মন্তব্যের কারনে তাকে গ্রেপ্তার করা হলেও অভিযোগ একাধীক। আগামীতে তাকে রিমান্ডে নিয়ে বিস্তার জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

অপরদিকে গত বছরের ৯ ডিসেম্বর দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় অভিযান চালিয়ে সাইবার সন্ত্রাস শেখ রিয়াদ মুহাম্মদ নুরকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-৩। গ্রেফতার নূর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে রাষ্ট্রবিরোধী মিথ্যা ও বানোয়াট নিউজ প্রচার করতো বলে অর্ভিযোগ রয়েছে।

সাইবার জগতের সন্ত্রাস নিয়াজ ও নুরের আটককের খবরে বরিশালের সকল স্থরের মানুষের মাঝে স্বস্তি ফিরে আসে। তাদের দুজনকে আটক করতে পারায় বরিশালের রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কিৃতিক, সাংবাদিক ও সুশিল সমাজের পক্ষ থেকে প্রশাসনকে ধন্যবান দেয়া হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here