শামীম আহমেদ ॥ স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিপ্তর এবং সড়ক জনপথ বিভাগের আওতায় বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলায় বাস্তবায়িত হচ্ছে প্রায় ১শ ৩৬ কোটি টাকার বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প।
জাতির পিতার ভাগ্নে, মন্ত্রী পদ মর্যাদায় পার্বত্য শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ কমিটির আহ্বায়ক স্থানীয় এমপি আলহাজ্ব আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ’র ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় সড়ক ও জনপথ বিভাগ ও স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের মাধ্যমে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় সড়ক, ভবন, স্কুল, ব্রীজসহ গ্রামীন অবকাঠামো উন্নয়নে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে ১শ ১৬ কোটি টাকার উন্নয়ন যজ্ঞ।

সরকারের হাতে নেয়া এ সকল প্রকল্প বাস্তবানের মাধ্যমে প্রধান মন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ি আগৈলঝাড়া উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে উপজেলা শহরের সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নয়নের মাধ্যমে গ্রামগুলো শহরে উন্নীত করা সহজ হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন স্থানীয় জনগন ও সংশ্লিষ্ঠ উন্নয়ন প্রকল্পের বাস্তবায়নকারী কর্মকর্তরা। সওজ বিভাগের আওতায় ৮৮ কোটি এবং স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের আওতায় প্রায় ৪৮কোটি টাকাসহ মোট ১শ ৩৬ কোটি টাকার কাজ বাস্তবায়ন হচ্ছে।

বরিশাল সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের এসও আবু হানিফ মিয়া জানান, ১৮ ফুট প্রশস্তে ২৩ কোটি টাকা ব্যয়ে গৌরনদী থেকে পয়সারহাট (বরিশাল অংশে) প্রায় ১৭ দশমিক ৮০ কিলোমিটার আঞ্চলিক মহাসড়ক উন্নয়ন, একই বিভাগ থেকে ৩৫ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি কালভার্টসহ ১৮ ফুট প্রশস্ত ও ৩ দশমিক ২শ কিলোমিটার দৈর্ঘে শহরের ফুল্লশ্রী বাইপাস মোড় থেকে কান্দিরপাড় বাইপাস মোড় পর্যন্ত সড়ক উন্নয়নসহ ১৭শ মিটার গাইড ওয়াল নির্মান কাজ।

একই প্রশস্তে প্রায় ৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে থানা গেট থেকে বরিশাল অংশের রাজিহার-ঘোষেরহাট পর্যন্ত দু’টি কালভার্ট নির্মানসহ ১২ দমমিক ৭০ কিলোমিটার সড়ক উন্নয়ন কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলেছে। সড়ক বিভাগের প্রায় ৮৮কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করছে বরিশালের এম খান গ্র“পের স্বত্তাধিকারী মো. মাহফুজ খান।

উন্নয়ন প্রকল্প তদারকির দ্বায়িত্বে থাকা সওজ বিভাগের এসও আবু হানিফ মিয়া ও ঠিকাদারের স্থানীয় প্রতিনিধি ফরহাদ হোসেন জানান, বৃস্টি মৌসুমের আগেই এসকল উন্নয়ন প্রকল্প সম্পন্ন করার চেষ্টা রয়েছে তাদের। সড়ক উন্নয়ন প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন হলে এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থার সাথে জনগনের আর্থ সামাজিক অবস্থার ব্যাপক উন্নয়ন হবে।
স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের আগৈলঝাড়া উপজেলা প্রকৌশলী রাজ কুমার গাইন জানান, স্থানীয় এমপি আলহাজ্ব আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ’র বদৌলতে একাধিক ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে উপজেলায় প্রায় ২৬ কোটি টাকার বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন কাজ চলমান রয়েছে।

বাস্তবায়নাধীন চলমান প্রকল্পগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, বরিশালের মাদার ইঞ্জিনিয়ারিং ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে সোয়া ৫ কোটি টাবা ব্যয়ে ছয় তলার ফাউন্ডেশনের চার তলা বিশিস্ট উপজেলা পরিষদ সম্প্রসারণ ভবন নির্মান, ৫ কোটি ২৫ লাখ টাকা ব্যয়ে উপজেলা পরিষদ হল রুম নির্মান, ১ কোটি ২০ লাখ টাকা ব্যয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার আবাসিক ভবন নির্মান। এছাড়ারও মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের সামনে ১ কোটি ১৮ লাখ টাকা ব্যয়ে ব্রীজ নির্মান, ১ কোটি ২০ লাখ টাকা ব্যয়ে নগড়বাড়ি মাজারের সামনে ১৬ মিটার ব্রীজ নির্মান, ১ কোটি ৪৮ লাখ টাকা ব্যয়ে ১নং রাজিহার ইউনিয়ন পরিষদ ভবন নির্মান, সাড়ে ৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ৬টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন নির্মান, ১ কোটি টাকা ব্যয়ে বিভিন্ন স্থানে ১০ কিলোমিটার সড়ক নির্মান কাজ চলমান রয়েছে।

এছাড়ারও বার্ষিক উন্নয়ন খাত (এডিপি)র আওতায় ২০টি প্যাকেজ ও ২০টি প্রকল্প সিপির মাধ্যমে বাস্তবায়নের জন্য প্রায় ১ কোটি টাকার টেন্ডার আহ্বান করা হয়েছে। ৩০ জুনের মধ্যে এডিপিসহ অধিকাংশ উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন সম্পন্ন হবে বলেও জানান প্রকৌশলী রাজ কুমার গাইন।

তিনি আরও জানান, এছাড়াও তার দপ্তরের মাধ্যমে বরিশাল-পিরোজপুর-ঝালকাঠি (বিজিবি) প্রকল্পের আওতায় প্রায় ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৩টি প্যাকেজের আওতায় সড়ক নির্মান কাজ চলমান রয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ চলমানসহ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অন্তত ১২ কোটি টাকা ব্যায়ে আরও ১৬টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন নির্মান কাজের টেন্ডার সম্পন্ন হয়েছে। খুব শিঘ্রই এসকল কাজ শুরু করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here